Spread the love

 

আমরা যদি গড়ে তুলি বজ্রদৃড় বাঁধ, কিন্তু সৃষ্টি করি দূর্বল চরিত্রের মানুষ, এ কোন অর্থনীতি?

একটা বিশেষ ‘ইজম্’ (মতবাদ) রক্ষা করতে যদি বলি দিতে হয় সারা দেশকে, সে রাজনীতির মূল্য কি ? মানুষ যদি নিজেই হয়ে যায় রোবট( যন্ত্রমানব) আর রোবট হতে থাকে মানুষের চেয়ে বেশি বুদ্ধিমান ও কর্মকুশল, তবে এই সিদ্ধান্তে আসতেই হয় যে মানব-সভ্যতা পশ্চাৎগামী। কেউ যদি তার নিজস্ব বুদ্ধি মতে কেবলমাত্র বিশেষ কতগুলি মানুষের সমৃদ্ধি চায়- বৃহত্তর অংশকে বাদ দিয়ে, তবে সে কেমনতর বুদ্ধি যা ‘উন্নতি’ বরদাস্ত করতে পারে না? বিশ্বজুড়ে যোগাযোগ ব্যবস্থার জলপাতা হয় যদি আমাদের ভিতরের গরলটুকু ছড়িয়ে দিতে, তাহলে দূরত্বের ব্যবধান ঘুচল কি করে? আপন-ভাই-বন্ধু-আত্মীয়কে অসুবিধায় ফেলতে আমাদের সকল শক্তি, অধ্যবসায়, একাগ্রতা ও ঐকান্তিকতাকে প্রযুক্ত করা এক অতি বিস্ময়কর সৃজনক্ষমতা নয় কি? উন্নততম বৈজ্ঞানিক প্রক্রিয়ায় সৃষ্ট মহাকাশযান যোগে যদি আমরা চাঁদে যাই অথচ পৃথিবীর বুকেই বাস করতে থাকি আজ যেমন ভাবে বাস করছি, তবে কি বলতে হয় না যে, বিজ্ঞান অপেক্ষা আমরা অধিক চন্দ্রপ্রভাবগ্রস্ত?

সভ্যতার ‘অগ্রগতির’ সাথে সাথে মানুষের যদি ক্রমশ অধঃপতন ঘটতে থাকে, তাহলে সে উন্নতির অর্থ কি?

Related Posts Plugin for WordPress, Blogger...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.